আগে থেকেই সতর্ক হোন হেপাটাইটিসের জন্য

415
আগে থেকেই সতর্ক হোন হেপাটাইটিসের জন্য

হেপাটাইটিস হলো লিভারের ইনফেকশন বা সংক্রমণ। বেশ কিছু ভাইরাস এই রোগের জন্য দায়ী। তার মধ্যে সবচেয়ে মারাত্মক হলো ‘বি’ ভাইরাস। হেপাটাইটিস হলে রোগীর জন্ডিস দেখা দেয়। খাবারে রুচি কমে যায়। বমি ভাব হয় এবং পেটে ব্যথা হয়। আবার কখনো কোনো লক্ষণই থাকে না, শুধু রক্ত পরীক্ষা করালে রক্তে ভাইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়ে।

‘বি’ ভাইরাস ধীরে ধীরে লিভারকে নষ্ট করে ফেলে এবং পরে লিভার সিরোসিস বা ক্যানসার পর্যন্ত হতে পারে। গর্ভাবস্থায় মা এই ভাইরাসে আক্রান্ত হলে জন্মের পর শিশুর শরীরে এ ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়ে। জন্মের পর শিশুর শরীরে কোনো লক্ষণ না থাকলেও পরে শিশুর শরীরে হেপাটাইটিসের লক্ষণ দেখা দেয়। এতে শিশুর লিভার সিরোসিস বা ক্যানসার হতে পারে পরবর্তী সময়ে।

কী করবেন:- এ ক্ষেত্রে শিশুর জন্মের পরপরই ১২ ঘণ্টার মধ্যে শিশুকে ২টি টিকা দিতে হবে। একটি শিশুর লিভারকে তাৎক্ষণিকভাবে সুরক্ষা দেওয়ার জন্য এবং অপরটি শিশুর শরীরে স্থায়ীভাবে এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ তৈরির জন্য।

এর পাশাপাশি শিশুকে অবশ্যই মায়ের দুধ খাওয়াতে হবে এবং শুধু বুকের দুধ। সঙ্গে কৌটার দুধ দিলে শিশুর ‘বি’ ভাইরাসের সংক্রমণের আশঙ্কা বেড়ে যায়। দেড় মাস বয়স থেকে শিশুকে স্বাভাবিক নিয়মে অন্যান্য টিকাও দিতে হবে।

আর একটা কথা উল্লেখ করতে হয়, স্ত্রী বা স্বামীর কারও রক্তে ‘বি’ ভাইরাস থাকলে (‘বি’ ভাইরাস পজিটিভ) তাদের জীবনসঙ্গী স্বামী বা স্ত্রীকেও ‘বি’ ভাইরাসের টিকা নিতে হবে। কারণ এই ভাইরাস রক্তের মাধ্যমে এবং শারীরিক সংস্পর্শের মাধ্যমেও ছড়ায়।

আপনি ও আপনার পরিবারের সবাই হেপাটাইটিস ‘বি’ ভাইরাসের বিরুদ্ধে টিকা নিন এবং আপনার শিশুকেও টিকা দিন। ভালো থাকুন।