অতিরিক্ত ঘামছেন? রান্না ঘরেই আছে প্রতিকারের উপায়..জেনে নিন

369
অতিরিক্ত ঘামছেন? রান্না ঘরেই আছে প্রতিকারের উপায়..জেনে নিন

ঘাম শরীরের অত্যাবশ্যকীয় একটি প্রক্রিয়া। ঘাম না হওয়া কখনো কখনো বড় ধরনের অসুস্থতার লক্ষণ। তবে এর মধ্যেও কারো কারো দেখা যায় অতিরিক্ত ঘাম হচ্ছে। এই অতরিক্ত ঘামও সমস্যা তৈরি করে। গ্রীষ্ম কিংবা বর্ষার ভ্যাপসা গরম আপনার ঘামের অন্যতম কারণ। এ সমস্যা থেকে মুক্তি নেই প্রায় কারও।পর্যাপ্ত স্নান, নামি-দামি পারফিউম-কোনও কিছুতেই ঘাম ও তার দুর্গন্ধ এড়ানো যায় না। কিন্তু এই ঘাম থেকে রক্ষা পাওয়ার হাতিয়ার কিন্তু রয়েছে আপনার রান্নাঘরেই!জানেন সে সব কী কী?

লেবুর রস:- লেবু ত্বকের পিএইচ মাত্রা কমিয়ে দিতে সক্ষম। এর ফলে শরীরে দুর্গন্ধ সৃষ্টিকারী জীবাণু ধ্বংস হয়। পাতি লেবুর সঙ্গে সামান্য লবণ মিশিয়ে শরীরে লাগান, মিনিট পাঁচেক রেখে ধুয়ে ফেলুন। লবণের সোডিয়াম রোমকূপের মুখ পরিষ্কার করে ও ঘামের দুর্গন্ধ সরায়। শরীরে ক্ষত থাকলে সেখানে এটি লাগাবেন না।

বেকিং সোডা:- শরীরের অতিরিক্ত আর্দ্রতা শুষে নেয়। ফলে ঘাম ও তার দুর্গন্ধ দুই থেকেই বাঁচায় এটি। যে সব অংশ বেশি ঘামে সেখানে পাউডারের মতো করে ব্যবহার করুন বেকিং সোডা। ভাল ফল পেতে খানিকটা জলে দু’চামচ বেকিং সোডা মিশিয়ে তা স্প্রে করুন। শুকিয়ে গেলে ঝেড়ে ফেলুন।

টমেটো:- ভিতরের শাঁস বাইরে আনুন। তা শরীরের নানা অংশে লাগিয়ে মিনিট পনেরো রাখুন। টমেটো রোদে পোড়া দাগ কমাতে সাহায্য যেমন করে ঠিক তেমনই ঘাম আটকাতে এর ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। ভাল ফল পেতে এক বালতি জলের সঙ্গে এক কাপ টমেটোর রস মেশানো জল দিয়ে স্নান করুন।

চা:- চায়ের ট্যানিন ত্বককে শুষ্ক রাখতে সাহায্য করে। ত্বক বিশেষজ্ঞদের মতে, এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে উপকারি গ্রিন টি। জল ফুটিয়ে তাতে গ্রিন টি-র পাতা দিন। সেই চা এ বার ভরে নিন বোতলে। বেশি ঘাম হয় শরীরের এমন নানা জায়গায় স্প্রে করুন। উপকার মিলবে।

ভিনেগার:- সাদা ভিনেগার ও অ্যাপেল সিডার ভিনেগার দুই-ই ঘামের পিএইচ মাত্রা কমাতে ওস্তাদ। প্রাকৃতিক পারফিউমের উপকার পেতে দুই টেবিল চামচ ভিনেগার, কয়েক ফোঁটা পিপারমিন্ট ও রোজমেরির তেল একসঙ্গে মিশিয়ে বোতলে রাখুন। ঘর থেকে বের হওয়ার সময় পারফিউমের মতো স্প্রে করুন শরীরে।