ঘুম ভেঙে যাচ্ছে আচমকা রাতে সঙ্গে মাথাব্যথা হয়..দেখে নিন কি রোগ আসন্ন..

229
ঘুম ভেঙেযাচ্ছে আচমকা রাতে সঙ্গে মাথাব্যথা হয়..দেখে নিন কি রোগ আসন্ন..

আচমকা ঘুম ভেঙে মাথাব্যথা শুরু হয়? প্রায় রাতেই এমন ঘটে? বেশির ভাগ ক্ষেত্রে হতাশা ও বিষণ্নতাই এ সমস্যার কারণ। মানসিক চাপ ও হতাশা কাটিয়ে উঠতে পারলেই এ রকম মাথাব্যথা থেকে মুক্তি মিলবে।মাইগ্রেন, মাংসপেশির টান বা চাপের কারণে সাধারণত দিনের বিভিন্ন সময়ে মাথাব্যথা হয়ে থাকে। সেই ব্যথা নিয়ে ঘুমিয়ে পড়লেও অনেক সময় রোগীর ঘুম ভেঙে তীব্র মাথাব্যথা শুরু হতে পারে। দাঁত, চোখ, কান, টনসিল, সাইনাস কিংবা ঘাড়ের বিভিন্ন সমস্যার কারণেও মাথাব্যথা হতে পারে। সে ক্ষেত্রে মাথাব্যথা ছাড়াও আনুষঙ্গিক নানান উপসর্গ দেখা দেয়।

সাধারণ মাথাব্যথায় ভয়ের কিছু নেই। তবে কিছু বিষয়ে সতর্ক থাকুন…………

যাঁদের মাথাব্যথা শেষ রাত থেকে সকালের দিকে তীব্র হয় এবং সঙ্গে বমি থাকে, তাঁদের অবশ্যই অবিলম্বে চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে। মস্তিষ্কের ভেতরকার তরলের স্বাভাবিক চাপ নির্দিষ্ট সীমা অতিক্রম করলে এমন লক্ষণ দেখা দেয়, তাই জরুরি ভিত্তিতে চিকিৎসা প্রয়োজন। মস্তিষ্কে টিউমার বা জীবাণুর সংক্রমণ হলে এমনটা হয়ে থাকে। অনেক সময় চোখে দেখতেও অসুবিধা হতে পারে। জীবাণু সংক্রমণের কারণে এমন ব্যথা হলে জ্বরও হতে পারে।

খুব অল্প সময়ে মাথাব্যথা তীব্র আকার ধারণ করলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

এমনিতে মাথাব্যথা হলে প্যারাসিটামল সেবন করতে পারেন। তবে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া অন্য কোনো ব্যথানাশক সেবন করবেন না।

মাইগ্রেনের ব্যথা যেসব কারণে বাড়তে পারে, সেগুলো এড়িয়ে চলুন।

বিপজ্জনক কোনো লক্ষণ না থাকলে মাথাব্যথা নিয়ে ভয় পাবেন না। দুশ্চিন্তা, হতাশা ও মানসিক চাপ থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করুন। প্রফুল্লচিত্তে কাজ করুন। বিষণ্নতা এড়াতে জীবনের ভালো দিকগুলোর কথা ভাবুন, জীবনের অর্জনগুলোর জন্য নিজেকে বাহবা দিন। মন খারাপের ভাবনাগুলোকে বিদায় দিন। তাহলে মাথাব্যথা থেকে দূরে থাকবেন।