আপনার কি হাত-পা অবশ হয়ে যায়? তাহলে জানুন তা যেসব রোগের লক্ষণ

123

অনেক মানুষ থাকে যাদের হাত পা অবশ হয়ে যাওয়ার সমস্যা থাকে।কিন্তু মাঝে মাঝেই এই রকম হাত পা অবশ হয়ে যাওয়া একেবারেই ভালো লক্ষণ নয়। প্রথম থেকে যদি এটিকে গুরুত্ব দেওয়া না হয়, তাহলেই হতে পারে সমূহ বিপদ। এই হাত পা অবশ হয়ে যাওয়া কোন সাধারণ লক্ষণ নয়, এটি ভবিষ্যতের কোনো কঠিন রোগের ইঙ্গিত দেয়। মূলত বাহু এবং কব্জির যে কোন একটি স্নায়ু যদি সংকুচিত হয় অথবা ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে যায় তাহলে এই অবসরে যাওয়ার অনুভূতি হতে পারে।

এছাড়া ডায়াবেটিস হলে অনেক সময় স্নায়ু ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে যায়। এছাড়া কোনো আঘাত অথবা সংক্রমণ হলে এই অবস্থা হতে পারে আপনার।অপরদিকে যদি পায়ের পাতা অবশ হয়ে যাওয়া আপনার প্রত্যেক দিনে সমস্যা হয়ে যায় তাহলে মনে রাখবেন যে আপনার মেরুদণ্ডের নিচের অংশের স্নায়ু মূলে কোন রকম সমস্যা দেখা দিচ্ছে। এই রকম অনুভূতি গুলো বিক্ষিপ্ত অথবা সরাসরি হয় এবং অনেক সময় বেশিক্ষণ স্থায়ী থাকে।

যদি হাতের উপর ভর দিয়ে দিবে কখন ঘুমিয়ে থাকেন,অথবা পায়ের উপর পা তুলে বসে থাকেন তাহলে দেখবেন যে নাড়াচাড়া করার সময় আপনার পা এবং হাত অবশ হয়ে গেছে। এই রকম অনুভূতি যদি বারবার হয় তাহলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। জটিল কোনো স্বাস্থ্য সমস্যার কারণে ও এটি হতে পারে।আজকে জেনে নিন সেই সমস্ত কারণগুলি যার ফলে আপনার প্রায়ই হাত এবং পা অবশ হয়ে যায়।

ডায়াবেটিস: অনেক মানুষ ডায়াবেটিসের ভুগে থাকেন। ডায়াবেটিস থাকলে মাঝে মাঝে পায়ের পাতা অবশ হয়ে যাওয়ার লক্ষণ থাকে, এটি আস্তে আস্তে উপরের দিকে উঠতে থাকে।

সিস্টেমিক ডিজিজ: এই রোগে শুধুমাত্র শরীরের কোন একটি অঙ্গ আক্রান্ত হয় না। এরকম রোগ থাকলে আপনার কিডনি, ভাসকুলার ডিজিজ, হরমোনের ভারসাম্যহীনতা হতে পারে। এমনকি ক্যান্সারের মতো মারণ রোগ আপনার শরীরে বাসা বাঁধতে পারে। এই রোগ গুলির ক্ষেত্রে প্রাথমিক ভাবে আপনার শরীর অবশ হয়ে যায়।

মাল্টিপল স্ক্লেরোসিস: প্রাথমিকভাবে হালকা হয়ে থাকলেও পরে যদি এটি বারবার হতে থাকে তাহলে এখন থেকেই সতর্ক হয়ে যান। এখন থেকে চিকিৎসকের পরামর্শ না নিলে ভবিষ্যতে এটি মাল্টিপল স্ক্লেরোসিস এ পরিণত হতে পারে। এর ফলে আপনার স্নায়ুতন্ত্রের ব্যাপক ক্ষতি হতে পারে।

পেরিফেরাল আর্টারি ডিজিজ: এই রোগে মস্তিষ্ক বাহু এবং দেহের বিভিন্ন অঙ্গের ধমনী রক্ত সরবরাহ করে তা মাঝে মাঝে আটকে যায়। ফ্যাট, ক্যালসিয়াম, কোলেস্টরেল এর কারণে এই রকম সমস্যা দেখা যায়। সঠিক সময়ে চিকিৎসা না করলে প্লাক জমে শক্ত হয়ে যাবে এবং ধমনীর পথকে শুরু করে দেবে।

টারসাল টানেল সিনড্রোম: পায়ের পাতার পেছনদিকে গোড়ালির দিকে একটি টানেল থাকে।চিকিৎসা করা হলে গোড়ালি দশরথ আকাশে ছড়িয়ে যেতে পারি আপনার সারা শরীরে এবং স্নায়ুর ক্ষতি হতে পারে।

স্ট্রোক: হৃদপিণ্ড যদি পর্যাপ্ত রক্ত সরবরাহ না পায় তাহলে স্ট্রোক হতে পারে। স্ট্রোকের কিন্তু প্রথম লক্ষণ বাম হাত অবশ হয়ে যাওয়া। হঠাৎ করে দৃষ্টিশক্তির পরিবর্তন, ভারসাম্য নষ্ট হয়ে যাওয়া, হাত এবং পা অবশ হয়ে যাওয়া।