প্রাকৃতিক উপায় চুল সোজা করার পদ্ধতি…….

563
প্রাকৃতিক উপায় চুল সোজা করার পদ্ধতি.......

কোঁকড়া চুল সোজা করতে রাসায়নিক উপাদান ব্যবহার করা হয় যা ক্ষতিকর। তাই প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে কেশ সোজা রাখার কয়েকটি পন্থা জেনে নিন…………

দুধ ও ডিমের প্যাক:- এক কাপ দুধ ও একটা ডিম নিন। দুধের ভেতরে ডিমটা ভেঙে ভালোভাবে কয়েক মিনিট ফেটে নিন। এবার এই প্যাক ব্রাশের সাহায্যে সম্পুর্ণ চুলে লাগান। তারপর একটি তোয়ালের সাহায্যে পেঁচিয়ে রাখুন চুল। আধ ঘণ্টা পর মৃদু শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে নিন।

অ্যালো ভেরা ও তেলের প্যাক:- অ্যালো ভেরা চুলের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে তা সবারই জানা। আধা কাপ অ্যালো ভেরা জেল ও আধা কাপ নারিকেল তেল একসঙ্গের মিশিয়ে চুলে লাগালে খনিকের জন্য হলেও চুলের কোঁকড়াভাব কমে আসে। এই প্যাক চুলে লাগিয়ে এক ঘণ্টা রেখে দিন। এরপর নিজের পছন্দের শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিন।

অ্যাপল সাইডার ভিনিগার:-  অ্যাপল সাইডার ভিনিগার প্রাকৃতিক পরিষ্কারক হিসেবে কাজ করে এবং চুলের ময়লা পরিষ্কার করার পাশাপাশি মসৃণ করতেও সাহায্য করে। তিন টেবিল-চামচ অ্যাপল সাইডার ভিনিগার দুই কাপ জলে মেশান। মৃদু শ্যাম্পু দিয়ে চুল পরিষ্কার করে নিন। ধোয়া চুল ভিনিগার মিশ্রিত জলে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে একবার এভাবে চুল পরিষ্কার করুন ভালো ফলাফল পাবেন।

মুলতানি মাটির প্যাক:- এটা চুলের প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজার হিসেবে কাজ করে এবং চুলের গঠন সুন্দর করে। দুই টেবিল-চামচ মুলতানি মাটি ও কিছু জল মিশিয়ে ঘন মিশ্রণ তৈরি করুন। মিশ্রণটি চুলে লাগিয়ে চিরুনি দিয়ে আঁচড়ান। এক ঘণ্টা মাথায় রেখে হালকা গরম জল দিয়ে ধুয়ে নিন।

নারিকেল দুধ ও ভুট্টার গুঁড়ার প্যাক:-  নারিকেলের দুধ শরীরের পাশাপাশি চুলের জন্যেও উপকারী। ভুট্টার গুঁড়ার সঙ্গে নারিকেলের দুধ মিশিয়ে প্যাক তৈরি করুন। এটা চুল সোজা করতে সাহায্য করে। আধা কাপ নারিকেল দুধে দুই টেবিল-চামচ ভুট্টার গুঁড়া মেশান। মিশ্রণটি ব্রাশের সাহায্যে চুলে লাগান। এক ঘণ্টা চুলে রেখে মৃদু শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিন।