মুগ ডালের নানাবিধ উপকারিতা গুলি দেখে নিন এক নজরে….

870
মুগ ডালের নানাবিধ উপকারিতা গুলি দেখে নিন এক নজরে....

ডাল শিম গোত্রের অন্তর্ভুক্ত একটি খাদ্যশস্য। এতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন ছাড়াও শর্করা,চর্বি ও খনিজ রয়েছে। নিরামিষভোজীদের জন্য মুগ ডাল জনপ্রিয় একটি খাবার। এতে প্রচুর পরিমাণে অ্যামাইনো এসিড ও উচ্চ মাত্রার প্রোটিন রয়েছে যা শরীরে আমিষের ঘাটতি পূরণ করে। কাজেই প্রতিদিনের ডায়েটে এই খাবারটি রাখা ভালো।

জেনে নিন মুগ ডালের কিছু স্বাস্থ্য উপকারিতা……

হজমে সহায়তা করে:- শরীরের পরিপাক নালীর মধ্যে যে বিষাক্ত পদার্থ আছে তা বের করে দেয় এই মুগ ডাল। ফলে হজম শক্তি বাড়ে। যকৃতের কাজের চাপ কমিয়ে আনতেও সাহায্য করে খাবারটি। এছাড়া এতে লেসিথিন নামে এমন এক ধরনের পুষ্টি উপাদান রয়েছে, যা যকৃতে চর্বি জমাতে বাধা দেয়।

কোলেস্টেরল কমায়:- মুগ ডাল রক্তে কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। ধমনীকে পরিষ্কার রাখায় হৃদরোগ ও স্ট্রকের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে খাবারটি। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, দিনে পাঁচ কিংবা তার বেশি বার এই ডাল খেলে হৃদরোগের ঝুঁকি শতকরা ২২ ভাগ কমে আসে।

ওজন কমায়:- মুগ ডালে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকায় ক্ষুধা কম লাগে। আর কম খেলে এমনিতেই ওজন কমে আসে। এছাড়া খাবারটিতে কম চর্বি এবং উচ্চ মাত্রার প্রোটিন থাকায় তা মাংসপেশীকেও চর্বিমুক্ত রাখে।

শক্তির জোগান দেয়:- ডালটিতে কার্বোহাইড্রেড থাকায় তা শরীরে শক্তির জোগান দেয়। এই উপাদানটি শুধু রক্ত চলাচলকেই সক্রিয় রাখে না, একইসঙ্গে গ্লুকোজের মাত্রাকেও ঠিক রাখে।

ক্যান্সারের কোষ ধ্বংস করে:- ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগীদের বেশি করে মুগ ডাল খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলেছেন, এতে ভিটামিন বি১৭ নামে এমন একটি উপাদান রয়েছে, যা ক্যান্সারের কোষগুলো কার্যকরভাবে ধ্বংস করে।

ভিটামিন সি-এর উৎস:- এতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি থাকায় তা তিগ্রস্ত কোষগুলো থেকে শরীরকে রক্ষা  করে।

ত্বকের জন্য ভালো:- এই খাবারটি ত্বকের জন্য অনেক ভালো। এতে ভিটামিন সি থাকায় সহজেই শরীরে বার্ধ্যকের ছাপ পড়ে না।  এছাড়া এটি কোলাজেন এবং ইলাস্টিন উৎপাদন করে তা ত্বকের জন্য ভালো। শুধু ত্বক নয়, খাবারটি নখ এবং চুলের জন্যও উপকারী। প্রোটিনের পাশাপাশি এতে জিঙ্ক এবং মিনারেল রয়েছে, যা নখ এবং চুলকে শক্তিশালী করে তুলতে সাহায্য করে।

ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য ভালো:- হজমে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখায় ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য একটি চমৎকার খাবার হলো মুগ ডাল। এটি রক্তে শর্করার মাত্রাকে নিয়ন্ত্রণে রাখে এবং বিভিন্ন রোগের হাত থেকে বাঁচায়।