বিজেপি নেতার বাড়িতে দুস্কৃতী হামলা, উত্তেজনা ত্রাণ বিতরণকে কেন্দ্র করে উত্তাল দিনহাটা,

4398
বিজেপি নেতার বাড়িতে দুস্কৃতী হামলা, উত্তেজনা ত্রাণ বিতরণকে কেন্দ্র করে উত্তাল দিনহাটা,

সাংসদ নিশীথের সাথে থানার সামনে অবস্থান বিক্ষোভে বসার জেরে বিজেপির যুবমোর্চার শহর মন্ডলের সভাপতির বাড়িতে ভাংচুর করার অভিযোগ উঠল তৃনমূলের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল রাতে দিনহাটা পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ড বডিংপাড়া এলাকায় বিজেপির যুবমোর্চার শহর মন্ডলের সভাপতি মুন্না সাউয়ের বাড়িতে। ওই ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে দিনহাটা থানার পুলিশ। ওই ঘটনায় জেরে এলাকায় একটা আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে।

ঘটনার প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত থানায় এখনও পর্যন্ত কোনো অভিযোগ দায়ের করা হয়নি।যদিও যুবমোর্চার নেতার তোলা অভিযোগ অস্বীকার করেছে স্থানীয় তৃনমূল নেতৃত্ব। মুন্না সাউয়ের অভিযোগ,গতকাল আমাদের সাংসদ নিশীথ প্রামানিক বিভিন্ন মন্ডলের দুঃস্থ অসহায় মানুষের জন্য ত্রান সামগ্রীর নিয়ে কয়েকটি গাড়ি বেড়িয়েছিল তা দেওয়ার জন্য। কিন্তু নিগম নগর সংলগ্ন এলাকায় ওই গাড়ি গুলিকে আটক করে দিনহাটা থানার পুলিশ।

তার জেরে দিনহাটা থানার সামনে রাস্তায় অবস্থান বিক্ষোভ করেন সাংসদ নিশীথ প্রামানিক। তার ওই অবস্থান বিক্ষোভে সামিল হওয়ার জেরে গতকাল রাত ৮টা ৩০ মিনিট নাগাদ আমার বাড়িতে হামলা চালায় তৃনমূল আশ্রিত কিছু দুস্কৃতিরা। তার ৮ থেকে ১০টি বাইক নিয়ে এসে আমার বাড়িতে হামলা চালায়। আমার ঘরের কাচের দরজা, জানালা ও বাড়ির মেইন গেট ভাঙচুর করে এমনকি আমাকে প্রানে মেরে ফেলার হুমকি দেয় ওই তৃনমূল আশ্রিত দুস্কৃতিরা।

পরে দিনহাটা থানার আই সি কে বিষয়টি জানাই। পরে পুলিশ আসে ঘটনা প্রত্যক্ষ ভাবে দেখে যান। আজ থানায় অভিযোগ দায়ের করা হচ্ছে। তৃনমূলের এই নোংরা রাজনীতিকে ধিক্কার জানাই। তিনি আরও বলেন, সাধারন মানুষ লকডাউনের কারনে গৃহবন্দি। দিন আনা দিন খাওয়া মানুষ অসহায় হয়ে পড়েছে। তাঁদের ত্রান দেওয়ার জন্য আমাদের সাংসদ ত্রানের গাড়ি পাঠিয়ে দিয়েছে। সেই ত্রান আমরা সাধারন মানুষ কে দিতে পারছি না।কারন তৃনমূলের নেতারা চাচ্ছে বিজেপি যাতে সাধারন মানুষের পাশে দাড়াতে না পারে। কিন্তু তাতে লাভ হয়ে না। মানুষ বুঝে গেছে তৃনমূল কি জিনিস। তাই আমরা পুলিশ প্রশাসনকে জানাতে চাই তৃনমূলের নেতাদের কথায় বিজেপি কর্মীদের ত্রান দেওয়া বন্ধ করবেন না। বরং সহযোগিতা করুন অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে তাঁদের যেন আমরা ত্রান দিতে পারি।
যদিও এবিষয়ে ৭ নং ওয়ার্ডের তৃনমূল কাউন্সিলার শুভময় চক্রবর্তী বলেন, গতকাল রাতে আমি বাড়িতে ছিলাম না। ওয়ার্ডের কোথায় কি হয়েছে তা জানা নেই। আর আমার কাছে এই ধরনের কোন খবর এখন পর্যন্ত নেই বলে জানিয়েছেন।