জেনে নিন উপকার পাবেন এই কনকনে ঠান্ডায় কিরূপ জলে স্নান করা স্বাস্থ্যের পক্ষে যথার্থ!

140
জেনে নিন উপকার পাবেন এই কনকনে ঠান্ডায় কিরূপ জলে স্নান করা স্বাস্থ্যের পক্ষে যথার্থ!

শীতের দাপটে কাবু হয়েছে গোটা পশ্চিমবঙ্গ। রাজ্যজুড়ে শীত পড়েছে জমিয়ে। তাপমাত্রা স্বাভাবিকের থেকে অনেকাংশে কম। এই শীতের হাত থেকে রক্ষা পেতে ব্যবহার করতে হচ্ছে শীতের বিভিন্ন পোশাক। বিছানা থেকে ওঠা এবং স্নান করা এই দুটি কাজে সব থেকে বেশি অসুবিধা। যদিও বা স্নান করতে হয় তবে অবশ্যই তা গরম জল দিয়েই। কিন্তু এই গরম জলে স্নান করা বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। তা ডেকে আনতে পারে বেশ কিছু সমস্যা। তাহলে কী করনীয়, আসুন জেনে নিই।

7খুব গরম জলে স্নান করা স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর। এটি ত্বকে থাকা ফলিকলগুলোকে বিনষ্ট করে দেয়। অতিরিক্ত গরম মাথায় ঢাললে তা চুলের গোড়া নরম করে দেয়। তাছাড়া মাথায় অতিরিক্ত গরম জল ঢাললে তা ব্রেনের ওপর কুপ্রভাব ফেলতে পারে। তাই আমাদের স্বাভাবিক জল ব্যবহার করা উচিত।

চিকিৎসকেরা জানান, বেশি গরম জলে স্নান করলে অ্যাসিডিটি-র সমস্যা বেড়ে যেতে পারে। অতিরিক্ত উষ্ণ জলে স্নান করলে মুখে পিম্পল হয়। তাছাড়া মানসিক উদাসীনতায় প্রভাব ফেলতে পারে অতিরিক্ত গরম জল। হার্টের সমস্যা থেকে থাকলে গরম জলের ব্যবহার মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। এটি তাদের কার্ডিওভাসকুলার সিস্টেমের ওপর তীব্র প্রভাব সৃষ্টি করতে পারে।

আবার অতিরিক্ত ঠান্ডা জলে স্নান, আপনার শরীরের তাপমাত্রা কমিয়ে দেয়। এতে দেহের সূক্ষ্ম টিস্যুগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়। নার্ভের সমস্যা দেখা দিতে পারে। যাদের বাতের ব্যথার প্রবণতা থাকে, তাঁদের ক্ষেত্রে ঠাণ্ডা জলে স্নান করা একেবারেই চলবে না। টনসিল, সর্দি, কাশি প্রভৃতি বিভিন্ন শারীরিক উপসর্গের উৎপত্তি ঘটবে। ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীদের ক্ষেত্রে, রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয় এই অভ্যাস।

শীতকালে তাহলে কী করনীয়! শীতকালে সবারই উচিত হালকা উষ্ণ জলে স্নান করা। বিশেষজ্ঞরা জানান, শরীরের পেশির সংকোচন প্রসারণের ক্ষেত্রে উষ্ণ গরম জল খুব জরুরি। এতে রক্ত চলাচলের ক্ষমতা বৃদ্ধি ঘটে, শরীরের তাপমাত্রা স্বাভাবিক থাকে। ইনসমনিয়া থাকলে সেই সমস্যার সমাধান হয়। পাশাপাশি কাশি, সর্দি বা টনসিলের থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।