তিলের তেলের উপকারিতা গুলি জেনে নিন এক নজরে

239
তিলের তেলের উপকারিতা গুলি জেনে নিন এক নজরে

আপনার আর আপনার কাঙ্খিত সৌন্দর্য্যের মাঝে শুধু তিলের তেলের মালিশের অপেক্ষা। আজকের লেখাটি চটপট পড়ে নিন আর দেখুন ম্যাজিক।  তিলের তেলের আয়ুর্বেদিক গুনের কথা আপনার জানা আছে কি? এই তেল বহু প্রাচীন কাল থেকেই কিন্তু আমাদের দেহের নানা রকম সমস্যার উপশম করে আসছে। শিশু থেকে বৃদ্ধ সকলের জন্যই কিন্তু এই তেলের মালিশ অত্যন্ত লাভদায়ক। চলুন জেনে নিই তিলের তেলের মালিশের নানাবিধ উপকারিতা………

১) ব্যাথার উপশম:- তিলের তেল বহু প্রাচীন কাল থেকেই আয়ুর্বেদিক ওষুধ তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। এই তেলে জিঙ্ক, কালসিয়াম, কপার, ম্যাঙ্গানিজ ইত্যাদি বর্তমান। এই তেলের নিয়মিত মালিশ আমাদের বোন ডেনসিটি কমতে দেয়না। যাদের হাতে পায়ে বাতের ব্যথা হয় তারা নিয়মিত এই তেলের মালিশ করলে হাতে পায়ে বা শরীরের অন্যান্য অঙ্গের ব্যাথায় আরাম পেতে পারেন।

২) শিশুদের জন্য উপকারী:- ছোটো শিশুদের তেল মালিশ অত্যন্ত জরুরি। তিলের তেল যদি ছোট শিশুদের দেহের মালিশের জন্য ব্যবহার করা হয় তাহলে তা অত্যন্ত উপকারী। এই তেল আপনার ছোটো শিশুর হাড় শক্ত করে এবং আপনার শিশুর তাড়াতাড়ি বেড়ে ওঠাতে সাহায্য করে। এছাড়া এই তেল আপনার শিশুর ত্বক নরম ও মসৃন করে এছাড়া ঠান্ডা লেগে যাওয়ার হাত থেকেও রক্ষা করে।

৩) বয়সের ছাপ পরা থেকে রক্ষা:- আজকাল কার ব্যাস্ত জীবন যাত্রা কিন্তু অনেকে সময়ই আমাদের চেহারায় অকালেই বয়সের ছাপ ফেলে দিছে। যারা এই সমস্যায় ভুগছেন তাদের জন্য কিন্তু তিলের তেলের মালিশ বেশ উপকারী। এতে বর্তমান আন্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন ই ও সেসামল আমাদের ত্বকের বয়স বাড়ার স্বাভাবিক পদ্ধতিকে বা গতি কে কমিয়ে দেয় ফলত আপনার চেহারায় বয়সের ছাপ পড়তে দেয় না।

৪) আন্টি ট্রেস হিসেবে কাজ করে:- সারা দিনের কাজ, নানা ধরনের চিন্তা,  অকারণ স্ট্রেস আপনার শরীর খারাপের কারণ হয়ে দাড়ায়। নিয়মিত তিলের তেলের মালিশ আপনার শরীরে রক্ত চলাচল স্বাভাবিক করে, মাংসপেশী গুলি কে শিথীল করে এছাড়া এর স্বাভাবিক কুলিং এফেক্ট আপনার দেহকে ঠান্ডা করে সমস্ত কাল্ন্তি দূর করে দেয়। অল্প তিলের তেল সার্কুলার মোশনে দেহে মালিশ করুন এই মালিশ আপনার দেহে আন্টি ট্রেস হিসেবে কাজ করে।

৫) আন্টি ট্যান হিসেবে কাজ করে:- নিয়মিত তিলের তেলের মালিশ আপনার শরীরের সান এক্সপোসড অংশ গুলিকে সূর্যের ট্যান হওয়ার হাত থেকে রক্ষা করে। নিয়মিত আপনার দেহে তিলের তেলের মালিশ একটি প্রাকৃতিক সানস্ক্রিনের কাজ করে।

৬) কনস্টিপেষণের উপশম:- আপনি যদি কনস্টিপেষণের রুগী হন তাহলে এই তেলের মালিশ আপনার জন্য উপকারী হতে পারে। প্রতিদিন একবার করে তিলের তেল ও ঠান্ডা জল আপনার তলপেটে মালিশ করুন। এর ফলে আপনার হজম ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় ফলে আপনি কনস্টিপেষণের হাত থেকে রক্ষা পাবেন। এছাড়া এই তেলের মালিশ গ্যাসের সমস্যা থাকলে তা দূর করতে সাহায্য করে।

৭) সুগঠিত স্তন পেতে:- আপনার স্তনের আকার ছোটো বা স্তনের গঠন ঠিক না হলে তা অনেক সময় আপনার অশান্তির কারণ হয়ে উঠতে পারে।এক্ষেত্রে আপনার স্তনে নিয়মত তিলের তেলের মালিশ করলে আপনার স্তনের আকার বৃদ্ধি পায় ও স্তন সুগঠিত হয়।

৮) চুলের নানা সমস্যার সমাধান:- চুল পড়ে যাওয়া, খুশকি, চুল রুক্ষ হয়ে যাওয়া, অকালে চুল পেকে যাওয়া, ড্রাই স্কাল্প ইত্যাদি নানা সমস্যার কোনো না কোনোটি নিশ্চই আপনার অশান্তির কারণ হয়ে উঠেছে। এর হাত থেকে রক্ষা পেতে তিলের তেলের মালিশ অত্যন্ত কার্যকরী। তিলের তেল চুলে কন্ডিশনারের কাজ করে। মাথায় নিয়মিত তিলের তেলের মালিশ স্কাল্পের রক্ত চলাচল বাড়িয়ে তোলে। ফলত আপনার চুল পড়া কম করে, খুশকির প্রকোপ কম করে, অকালে চুল পেকে যাওয়া কম করে আপনার চুল জেল্লাদার, মজবুত ঘন ও কালো করে তোলে।

৯) ত্বকের সুরক্ষা:- তিলের তেলে প্রচুর পরিমানে ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে। যা আমাদের ত্বকের জন্য অত্যন্ত উপকারী। শীত কালে গোড়ালি ফেটে যাওয়া প্রায় সকলের ক্ষেত্রে একটি সাধারণ সমস্যা। শীতকালে রাতে শুতে যাবার আগে গোড়ালি তে এই তেলের মালিশ করলে শীত কালেও আপনার গোড়ালি সুন্দর এবং মসৃন থাকে। এছাড়া রুক্ষ ত্বক, কনুই, হাটু ইত্যাদি রুক্ষ হয়ে গেলে তিলের তেলের মালিশ করলে খুব তাড়াতাড়ি আপনার ত্বক সুন্দর, নরম ও মসৃন হয়ে যায়।

১০) হাড়ের সন্ধির ব্যাথার উপশম:- হাড়ের সন্ধি স্থানে ব্যাথা সাধারনত বয়স জনিত রোগ। আজকাল একটু বয়স হলেই সকলেই এই কষ্টের শিকার। বয়সের সাথে সাথেগোড়ালি হয়ে পড়ে ফলত হাড়ের সন্ধিস্থল ক্ষয়ে যেতে থাকে। যার ফলে অত্যন্ত ব্যাথা হয় এবং চলাফেরা করা দুস্কর হয়ে পরে। এক্ষেত্রে এই তেল নিয়মিত মালিশ হাড় শক্ত করে, হাড়ের ক্ষয় রোধ করে।

তিলের তেলের এত রকম উপকারিতার কথা আগে জানা ছিল কি? না জানা থাকলেও এখন যখন জেনেই গিয়েছেন তখন দেরী না করে এই অসম্ভব উপকারী তেলের ব্যবহার শুরু করুন।