সাপের কামড় খেল টয়লেটে বসতেই… তারপর

174
সাপের কামড় খেল টয়লেটে বসতেই... তারপর

সাপের নাম শুনলে আঁতকে ওঠেন না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া কঠিন। বিষধর সাপ দেখলেই অনেকে হতভম্ব হয়ে যান। কিন্তু সেই সাপ যদি নিজের বাড়িতে থাকে, তাও যদি টয়লেটে আর অজান্তেই যদি কামড় দেয়, তাহলে একবার ভাবুন কী পরিস্থিতি হতে পারে।

এমনই এক ঘটনা ঘটেছে অস্ট্রেলিয়ার ব্রিসবেনে একজন নারীর বাড়িতে। প্রাকৃতিক কারণে টয়লেটে বসেছিলেন ওই নারী, কিন্তু অজান্তে কার্পেট পাইথন নামক সাপের কামড় খেয়ে তাকে লাফিয়ে উঠতে হলো বলে জানিয়েছেন একজন প্রাণী উদ্ধারকর্মী।

গত মঙ্গলবার এই ঘটনাটি ঘটে। ৫৯ বছর বয়সী হেলেন রিচার্ডকে এরপরে তার একজন আত্মীয়ের বাসায় সাপের কামড় প্রতিরোধী ইনজেকশন দেওয়া হয়।

তবে, অজগর জাতের সাপের কামড়ে তার শরীরে ছোট একটি ক্ষতের সৃষ্টি হয়েছে। এ জাতীয় সাপের কামড়ে বিষ থাকে না। সাপটিকে পরে যিনি ধরে নিয়ে যান, সেই প্রাণী উদ্ধারকর্মী জেসমিন যেলেনি বলেন, ‌গরমের সময় এ জাতীয় সাপগুলোর টয়লেটে আশ্রয় নেয়ার ঘটনাটি সাধারণ একটি ব্যাপার। ওই ঘটনার সময় তীক্ষ্ণ একটি খোঁচা অনুভব করেছিলেন মিজ রিচার্ডস।

কুরিয়ার মেইল পত্রিকাকে তিনি বলছেন, ‘‌আমি প্যান্ট খোলা অবস্থাতেই লাফিয়ে উঠলাম এবং পেছন ফিরে দেখতে পেলাম, লম্বা গলার একটি সাপ টয়লেটের ভেতর থেকে বেরিয়ে আসছে।’’

প্রাণী বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গরমের সময় টয়লেটে অজগর সাপের আশ্রয় নেওয়ার ঘটনাটি একটি সাধারণ ব্যাপার। মিজ যেলেনি বিবিসিকে বলছেন, ‘’টয়লেটের ওপর কেউ বসায় সাপটির বেরিয়ে আসার রাস্তা বন্ধ হয়ে যাওয়ায়, সেটি ভীত হয়ে এ কাণ্ড ঘটিয়ে থাকতে পারে। তবে আমি সেখানে পৌঁছানো পর্যন্ত হেলেন সাপটিকে আটকিয়ে রাখেন এবং শান্ত ছিলেন। তিনি একজন চ্যাম্পিয়নের মতো পরিস্থিতি সামলেছেন।’’

অস্ট্রেলিয়ার পূর্বাঞ্চলে কার্পেট অজগর দেখা যাওয়াটা নিয়মিত একটি ব্যাপার। এই সাপগুলো নির্বিষ, তবে, তাদের কামড়ে টিটেনাস ইনজেকশন নেয়ার দরকার পড়ে। গত দুই সপ্তাহ ধরে অস্ট্রেলিয়ায় চরম তাপ দাহ বয়ে যাচ্ছে। এর মধ্যেই গরমের দিক থেকে সেটি দেশটির বেশ কয়েকটি রেকর্ড ভেঙ্গে দিয়েছে। এই তাপ দাহে চরম সংকটে পড়েছে প্রাণীরাও। এরই মধ্যে ঘোড়া, বাদুর আর নানা প্রজাতির মাছ মারা যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে।